ঢাকা, বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১

এম বিডি মাল্টিমিডিয়া

সুস্থ বিনোদনের নির্ভরযোগ্য ঠিকানা

:: সিটি রিপোর্ট || প্রকাশ: ২০২০-১২-১৪ ১১:৪৯:৪৩

মানুষের চাহিদা, ভালোলাগা বা সময় কাটানোর বড় একটি অনুষঙ্গ বিনোদন। আদিকাল থেকে মানুষ তার মৌলিক অধিকার পূরণের পাশাপাশি বিভিন্নভাবে বিনোদনের সাথে সম্পর্কিত। সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে বিনোদনের ধরন, মাধ্যমে বড় পরিবর্তন এসেছে। হাল আমলে টেলিভিশন, রেডিও বিনোদনের বড় মাধ্যম হলেও সবচেয়ে আকর্ষণীয় এবং সহজ মাধ্যম হলো ইউটিউব। মুক্ত এই প্লাটফর্মে রয়েছে লাখ লাখ চ্যানেল। কোনো সেন্সরশিপ না থাকায় অনেকটা ইচ্ছে মতো কন্টেন্ট আপলোড করেন চ্যানেল মালিকরা। এতে একদিকে যেমন মানহীন কনটেন্ট আপলোড হচ্ছে অন্যদিকে শিল্পের প্রতিও কমছে দায়বদ্ধতা। তবে ভালো এবং রুচিশীল চ্যানেলেরও কমতি নেই এই প্লাটফর্মে। তেমনই একটি চ্যানেল ‘এম বিডি মাল্টিমিডিয়া।

চলতি বছরের শুরুর দিকে তরুণ উদ্যোক্তা ইঞ্জিনিয়ার মো. আব্দুস সালামের হাত ধরে এই চ্যানেলের যাত্রা শুরু। একটি নিউজিক ভিডিও দিয়ে এর আত্মপ্রকাশ হলেও বর্তমানে ভিন্নধর্মী নাটকই এখানে দেখানো হচ্ছে।

মেস ম্যানেজার নাটকের দৃশ্য

ইতিমধ্যে চ্যানেলটিতে বেশ কয়েকটি নাটক প্রকাশিত হয়েছে। যা দর্শক মহলে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। তথাকথিত ‘ভিউ’ সর্বস্ব কনটেন্ট নয় রুচিশীল ও মানের কনটেন্ট নিয়েই কাজ করছে চ্যানেলটি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এম বিডি মাল্টিমিডিয়ার নিজস্ব চ্যানেল এটি। চ্যানেলটিতে এখন পর্যন্ত অন্তত ২৪টি ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। এরমধ্য অন্তত ১৪টি একক নাটক, দুটি ধারাবাহিক ও কয়েকটি মিউজিক ভিডিও। চ্যালেলটির দর্শকপ্রিয় একটি নাটক ‘মেস ম্যানেজার’। যার পাঁচ পর্ব প্রকাশ করা হয়েছে। প্রকাশের পরপরই পেয়েছে জনপ্রিয়তা। প্রতি বৃহস্পতিবার নাটকটি প্রকাশ করা হচ্ছে।

চ্যানেল সংশ্লিষ্টরা বলেন, এম বিডি মাল্টিমিডিয়ার রয়েছে নিজস্ব শুটিং হাউজ। নিজেদের প্রডাকশন নির্মাণের পাশাপাশি অন্য ইউনিটের প্রডাকশন নির্মাণের জন্য ভাড়াও দেয়া হয়। রাজধানীর খিলক্ষেত থেকে ১০ মিনিটের দূরত্বে বড়ুয়া এলাকায় আশিয়ান মেডিকেল সংলগ্ন শুটিং হাউজটিতে রয়েছে পর্যাপ্ত জায়গা। এখানে সব ধরনের শুটিং স্বাচ্ছন্দে করা যায়।

এদিকে, এম বিডি মাল্টিমিডিয়ার প্রডাকশনে শুরু থেকেই কাজ করছেন দেশের তরুণ ও জনপ্রিয় অভিনয় শিল্পীরা। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য শিল্পীরা হলেন- সঞ্জীব চৌধুরী, হেদায়েত নান্নু, ইঞ্জিনিয়ার সালাম, জুয়েল, মিরাক্কেল খ্যাত ইমরান হাসু, তমা ইসলাম, ডালিয়া, হেলাল আহম্মেদ, হাসানুজ্জামান জুয়েল, জুনিয়র মান্না প্রমুখ। চ্যানেলটির অধিকাংশ নাটকের চিত্রগ্রহণ করেছেন চঞ্চল শেখ।

এম বিডি মাল্টিমিডিয়ার প্রডাকশনে কাজ করে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন সব শিল্পীরা। তারা বলেন, সুস্থ বিনোদনের জন্য নিরলস কাজ করছে চ্যানেলটি। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটি শতভাগ পেশাদারিত্ব নিয়ে কাজ করছে।

প্রবাসীর কান্না নাটকের দৃশ্য

চিত্রগ্রাহক চঞ্চল শেখ ক্যারিয়ারটাইমসকে বলেন, শতভাগ পেশাদারিত্ব নিয়ে কাজ করছে এম বিডি মাল্টিমিডিয়া। এখানে কাজ করে বেশ ভালো লাগছে। চিত্রগ্রাহক হিসেবে অনেক বড় বড় প্রডাকশনে কাজ করেছি। সেই অভিজ্ঞতা থেকে দেখছি, এম বিডি মাল্টিমিডিয়া বেশ গোছানো। এদের চিন্তাও পরিশিলীত। আশা করছি, চ্যানেলটির জন্য আমরা আরও ভালো কাজ বের করতে পারবো।

জনপ্রিয় অভিনেতা সঞ্জীব চৌধুরী বলেন, আমি ইউটিউবের কাজ সাধারণত করি না। করবো এমন চিন্তাও ছিলো না। তবে আমার কাছে যখন প্রস্তাব আসে, আমি তাদের সাথে কথা বলে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিই। একটি গোছানো ইউনিট রয়েছে এখানে। ফলে কখনো আমার ফিল হয়নি আমি ইউটিউবের কাজ করছি। অনেক টিভি নাটকও এতো সুন্দর ইউনিট নিয়ে তৈরি হয় না।

মেস ম্যানেজার নাটকের দৃশ্য

চ্যানেলের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি নাটক সম্পাদনা করেছেন বি সমিন। তিনি বলেন, এম বিডি মাল্টিমিডিয়ার কাজগুলো বেশ আলাদা। এখানে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছি। নিজের ক্রিয়েটিভ চিন্তাগুলোর প্রতিফলন করতে পারছি। সবমিলে বেশ ভালো কাজ হচ্ছে।

চ্যানেলটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ইঞ্জিনিয়ার মো. আব্দুস সালাম ক্যারিয়ারটাইমসকে বলেন, আমাদের প্রথম এবং প্রধান উদ্দেশ্য সুস্থ বিনোদন দেয়া। ইউটিউবের সহজলভ্যতা আমাদের বিনোদন অঙ্গনকে অনেক কিছু দিচ্ছে। তবে এরমধ্যে মানহীন কনটেন্টই বেশি। আমরা তথাকথিত ভিউয়ের পিছনে না ছুটে মানসম্পন্ন কনটেন্ট তৈরি করছি। এতে তাৎক্ষণিক হয়তো আমরা ভাইরাল হচ্ছি না। তবে দর্শকের হৃদয়ে আমরা জায়গা করে নিচ্ছি। আমরা এই ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে চাই।